ডেইলি লাইফ

আমাদের ডেইলি লাইফস্টাইলে টেকনোলজির প্রভাব !

0
technology impact on daily lifestyle

আমরা আধুনিক প্রযুক্তির এমন এক যুগে বাস করছি, যেখানে আমাদের দৈনন্দিন জীবনের প্রতিটি অংশ এক-এক ভাবে সায়েন্স এবং টেকনোলজির সঙ্গে সম্পর্কিত । এতে কোন সন্দেহ নেই যে বছরের পর বছর টেকনোলজি উন্নত থেকে আরও উন্নত হচ্ছে এবং সব কিছু আমাদের আঙ্গুলের মধ্যে নিয়ে এসেছে। বিভিন্ন ধরনের উন্নত গ্যাজেট ও ইন্টারনেটের সাথে সংযুক্ত হওয়া ইত্যাদি আমাদের ডেইলি লাইফে অনেক পরিবর্তন করেছে। অনলাইনে কেনাকাটা, যোগাযোগ, পড়াশুনা, খেলাধুলা, কাজ করা সহ এখন সবই করা যায়।

আমরা দৈনিক ভিত্তিতে যে প্রযুক্তি ব্যবহার করি তা আমরা সবাই জানি — কম্পিউটার, মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, ট্যাবলেট ও টিভি থেকে রেফ্রিজারেটর এবং কনভেকশন ওভেন সবই আধুনিক টেকনোলজির অবদান।

আধুনিক যোগাযোগ ব্যবস্থায়ঃ

আধুনিক প্রযুক্তি আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থাকেই বদলে দিয়েছে। মোবাইল ফোন থেকে শুরু করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, ই-মেইল, ভয়েসকল, ভিডিওকল সবকিছুই আমাদের ডেইলি লাইফকে সহজ করে দিয়েছে। আমরা এখন খুব সহজেই অন্যদের সাথে কথা বলা, অনূভতি শেয়ার করা সবই করতে পারি খুব দ্রুত।

যদিও প্রযুক্তি যোগাযোগের জন্য উপকারী এবং মানুষকে একে অপরের সংস্পর্শে নিয়ে আসে। তবে আপনাকে সাইবার জগত এবং বাস্তব জগতের মধ্যে ভারসাম্য খুঁজে বের করতে হবে । এই প্রযুক্তিগত অগ্রগতি আজকের সমাজে অভাবনীয় ও গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে, কিন্তু আপনার চারপাশের শারীরিকভাবে যারা আছে তাদের ভুলে যাওয়া বা না হারানোর জন্য আপনাকে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে । সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে যোগাযোগ করা হলে হয়তো মজার এবং আরও সুবিধাজনক হবে, কিন্তু এটা আমাদের সামাজিক দক্ষতার জন্যও ক্ষতিকর । স্মরণীয় কিছু অভিজ্ঞতা বানানোর জন্য হলেও আপনার বন্ধু এবং পরিবারের সাথে সময় কাটানো খুবই গুরুত্বপূর্ণ ।

আরও উন্নত বিনোদন প্রদানেঃ

একটা সময় ছিলো যখন আমরা আমাদের চারপাশে যা পেতাম তাতেই আমাদের আনন্দ বা বিনোদন খুঁজে নিতাম। বা আমাদের সুখকর সময়গুলো দেওয়ালে ফটো হিসেবে রেখে দিতাম। কিন্তু যুগের সাথে সাথে সবই বদলে গেছে। এখন ইন্টারনেট, সোস্যাল মিডিয়া, ইউটিউব ইত্যাদিই আমাদের বিনোদনের জায়গা।

টেকনোলজির পরিবর্তনের ফলে এক সাদা কালো টিভি থেকে রঙ্গিন টিভি আসলো। এরপর ডিভিডি/ভিসিডি। এরপর আসলো এলসিডি টিভি। এখন আবার সোস্যাল মিডিয়া বা ইউটিউব। এইভাবেই টেকনোলজি আমাদের বিনোদনের জায়গায়টা পরিবর্ত্ন করছে।

এছাড়া কম্পিউটারে গেম খেলা, মোবাইলে গেম খেলা সব ক্ষেত্রেই আমরা টেকনোলজির উপর নির্ভরশীল।

বাসাবাড়ি ও জীবনযাত্রায় টেকনোলজিঃ

হাউজিং ও ডেইলি লাইফস্টাইলেও টেকনোলজি অনেক প্রভাব রয়েছে। বর্তমানে রান্না-বান্না থেকে শুরু করে ডোর লক, সিকিরিউটি ক্যামেরা, ফ্রিজ ও নানা অটোমেশন আমাদের লাইফটাকে অনেক সহজ করে দিয়েছে। এছাড়া ঘরে বসেই এখন আমরা শপিং, বাজার কেনা ইত্যাদি কাজ করে ফেলতে পারি।

চিকিৎসায় প্রভাবঃ

চিকিৎসায় টেকনোলজির প্রভাব বা অবদান সবচেয়ে বেশি। সার্জারি হতে শুরু করে আধুনিক সব অপারেশন এখন অনেক নির্ভুল্ভাবে করা যায়। এছাড়া রোগ নির্ণয় করা থেকে শুরু করে মেডিসিন বানানো বা মান নিয়ন্ত্রন এখন সবই টেকনোলজির মাধ্যমে করা হয়।

এখন তো ঘরে বসেই ওষুধ কেনা, ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করা সবই সম্ভব।

শিক্ষাব্যবস্থায় প্রভাবঃ

বর্তমানে ইন্টারনেটের মাধ্যমে খুব সহজে অনেক কিছু শেখা যায়। বিভিন্ন অনলাইন কোর্স, ফ্রী রিসোর্স, জার্নাল সবই পাওয়া যায় এবং কম্পিউটার কিংবা মোবাইলের মাধ্যমে জানা যায়।

ঘরে বসেই এখন অনেক ভার্সিটিতে অ্যাডমিশন নেওয়া, কোর্স করা বা পরীক্ষা দেওয়া সম্ভব।

মোবাইল ফোন বা পিসি এর মাধ্যমে প্রেজেন্টেশন শেয়ার করা, ভিস্যুয়াল লেসন নেওয়া যায়।

ট্রান্সপোর্ট সিস্টেমে বা ভ্রমনে প্রভাবঃ

এককালে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় যেতে কয়েকদিন থেকে কয়েক মাস কিংবা বছর লেগে যেতো। কিন্তু টেকনোলজির উন্নতিতে এখন আমরা খুব সহজে এক জায়গায় থেকে অন্য জায়গায় যেতে পারি। বাংলাদেশ থেকে আমেরিকা ১৫-১৬ ঘন্টায় যাওয়া যায়। এইগুলো সবই সম্ভব হয়েছে আদুনিক টেকনোলজির জন্য। আধুনিক কার, বাস, ট্রেন, বিমান আমাদের এই ভ্রমনকে এতো সহজ করে দিয়েছে।

এছাড়া পন্য পরিবহন, এক দেশ থেকে অন্য দেশে পন্য পাঠানো ও দেশের আয় বাড়াতেও এর অনেক অবদান আছে।

কর্মসংস্থান ও কাজের ধরনে প্রভাবঃ

আধুনিক টেকনোলজির কারনে নতুন নতুন কর্মের সংস্থান হচ্ছে। সফটওয়্যার বানানো, ওয়েব ডিজাইন, ফ্রিল্যান্সিং, গ্রাফিক্স ডিজাইন সব ক্ষেত্রেই নতুন নতুন কর্মসংস্থান হচ্ছে। এছাড়া অফিসে কাজের গতি বাড়ছে, কাজ করা বা ডাটা সংরক্ষন করা অনেক সহজ হয়ে যাচ্ছে।

শেষে একটি কথায় বলা যায়, আমাদের ডেইলি লাইফস্টাইলে টেকনোলজির অনেক প্রভাব রয়েছে। আমরা বর্তমানে যাই করি না কেনো কোন না কোন আধুনিক টেকনোলজির পন্য সেখানে জড়িত। খাওয়া থেকে শুরু করে ঘুমানো, কাজ করা সব ক্ষেত্রেই এর বিস্তার।

ফেসবুক সার্ভার ডাউনঃ ছবি ও ভিডিও দেখা যাচ্ছে না !

Previous article

চীন থেকে পন্য উৎপাদন সরিয়ে নিতে পারে অ্যাপল-গুগল-ডেল !

Next article

You may also like

Comments

Leave a reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *